logo
শিরোনাম

ডিসেম্বরে সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে: প্রধানমন্ত্রী


ডিসেম্বরে সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সংবিধান অনুযায়ী ২০১৮ সালের শেষদিকে একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কিভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে, তা আমাদের সংবিধানে স্পষ্টভাবে বলা আছে। সংবধিান অনুযায়ী নির্বাচনের আগে নির্বাচনকালীন সরকার গঠিত হবে। সেই সরকার সর্বত্রভাবে নির্বাচন কমিশনকে নির্বাচন পরিচালনায় সহায়তা দিয়ে যাবে।

 

সরকারের বছরপূর্তি উপলক্ষে শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) টেলিভিশন ও বেতারে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে একাদশ সংসদ নির্বাচন কখন ও কিভাবে অনুষ্ঠিত হবে, সে সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার অবস্থান তুলে ধরেন।

 

নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কীভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে তা আমাদের সংবিধানে স্পষ্টভাবে বলা আছে। প্রধানমন্ত্রী জানান, ২০১৩ সালের মতই নির্বাচনের আগে মন্ত্রিসভা পুনর্গঠনের মাধ্যমে একটি ‘নির্বাচনকালীন সরকার’ গঠন করা হবে। সেই সরকার নির্বাচন পরিচালনায় নির্বাচন কমিশনকে সর্বোতভাবে সহায়তা দিয়ে যাবে।

 

একটি অসাধু মহল আগামী নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টির অপচেষ্টা করতে পারে বলে দেশবাসীকে এ ব্যাপারে সতর্ক থাকার আহ্বান জানা প্রধানমন্ত্রী। এ সময় বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নির্বাচন বয়কট করে আন্দোলনের নামে জনগণের জানমালের ক্ষতি করবেন- এটা আর এদেশের জনগণ মেনে নেবেন না।

 

সকল নিবন্ধিত দল নির্বাচনে অংশ নেবে বলে আশা প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি আশা করি, নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত সকল দল আগামী সাধারণ নির্বাচনে অংশ নেবেন এবং দেশের গণতান্ত্রিক ধারাকে সমুন্নত রাখতে সহায়তা করবেন।

 

প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ জাতীয় চার নেতা, মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহীদ, দুই লাখ নির্যাতিত মা-বোন এবং মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সহযোগিতাকারীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

 

বাংলাদেশকে ‘সোনার বাংলা’ হিসেবে গড়ে তুলতে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, সেই আকাঙ্ক্ষা পূরণ করাই তারর ‘একমাত্র ব্রত’। তিনি বলেন বাংলার মানুষ যেন অন্ন পায়, বস্ত্র পায়, উন্নত জীবনের অধিকারী হয়- জাতির পিতার এই উক্তি সর্বদা আমার হৃদয়ে অনুরণিত হয়। তাই সর্বদা আমার একটাই প্রচেষ্টা- কীভাবে বাংলাদেশের মানুষের জীবনকে অর্থবহ করব, স্বচ্ছল ও সুন্দর করে গড়ে তুলব।

 

প্রসঙ্গত, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি সময় ধরে সরকার প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তিন মেয়াদে ১৪ বছর প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ পর্যন্ত সরকারের নেতৃত্ব দেওয়ার পর আওয়ামী লীগ নির্বাচনে হেরে গেলে শেখ হাসিনা হন বিরোধদলীয় নেতা। এরপর ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের নবম সংসদ নির্বাচনে তিন-চতুর্থাংশ আসনে জয় পায় আওয়ামী লীগ। ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে গঠিত হয় মহাজোট সরকার। এরপর ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়ে দ্বিতীয় মেয়াদে সরকার গঠন করে টানা ৯ বছর সফলতার সাথে সরকার পরিচালনা করছেন তিনি।। 

মন্তব্য

উপর