logo
শিরোনাম

মাদক খোঁজতে ফ্রিজে পুলিশের তল্লাশির সাংবাদে কোরবানির গোস্ত নিয়ে হুরাহুরি


মাদক খোঁজতে ফ্রিজে পুলিশের তল্লাশির সাংবাদে কোরবানির গোস্ত নিয়ে হুরাহুরি

কোরবানির গোস্ত ফ্রিজে পেলেই ফ্রিজ ভাঙচুর এমন সংবাদ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে  ফ্রিজে রাখা কোরবানির গোস্ত নিয়ে হুরাহুরা শুরু হয়ে যায়। এমনকি পুলিশ আতংকে অনেকই তাদের ঘরের ফ্রিজে রাখা কোরবানির গোস্ত ফেলে দেয়।


খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত (১০ জানুয়ারি) বুধবার কয়েক বাড়িতে মাদক আছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ সন্দেহজনক কয়েক বাড়িতে গিয়ে ঘরের বিভিন্ন জায়গায় এমনকি ফ্রিজের ভিতরেও তল্লাশি চালায়।


এসময় ফ্রিজে রাখা কোরবানির গোস্ত তছনছ করে মাদক খোঁজাখোজি করে।


পরবর্তীতে এ ঘটনা "কোরবানির মাংস দীর্ঘদিন যাবৎ ফ্রিজে রেখে খেলে ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বলে পুলিশ ফ্রিজ তল্লাশি করছে এবং গোস্ত ফেলে দিয়ে ফ্রিজ ভেঙ্গে ফেলছে" এমন গুজব গোটা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় ভাইরাল হয়ে পড়ে।


ভাইরাল হওয়া বিষয়টি গুজব কি না এর সত্যতা জানতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার একজন ব্যবসায়ীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই প্রতিনিধিকে জানান পুলিশ তল্লাশি করতে গিয়েছিল টিক, তবে যেসব ফ্রিজগুলো ভাঙ্গা হয়েছে সেসব ফ্রিজগুলোতে তল্লাশি করে এর ভিতরে বিভিন্ন ধরণের মাদকদ্রব্য পাওয়া গেছে। এছাড়াও সেখানে চিপস ও চানাচুরের ছোট একটি কারখানা রয়েছে।


পুলিশ সে কারখানার লাইসেন্স চেক করে পুরনো তেল এবং মেয়াদ উত্তীর্ণ কিছু খাদ্য দ্রব্য ও ধ্বংস করেছে। এ বিষয়টিকে কেন্দ্র করে কিছু সংখ্যাক লোক এই গুজব সারা এলাকায় ছড়িয়ে দেয়।


আর হস্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার বিরাসার গ্রামের পূর্বপাড়ার কয়েকটি বাড়িতে।


পরবর্তীতে এই গুজব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা সহ পার্শ্ববর্তী উপজেলাগুলোতে।

মন্তব্য

উপর