logo
শিরোনাম

যুক্তরাষ্ট্রের যেকোনো স্থানে হামলায় ‘সক্ষম’ উত্তর কোরিয়া


যুক্তরাষ্ট্রের যেকোনো স্থানে হামলায় ‘সক্ষম’ উত্তর কোরিয়া

শুক্রবারের আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার সফলতা দাবি করেছে উ. কোরিয়া। দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমকে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এই খবর জানিয়েছে। তারা বলছে, এটি যুক্তরাষ্ট্রের সব স্থানে আঘাত হানতে সক্ষম বলে দাবি করেছেন উ. কোরীয় নেতা কিম জন উন। ক্ষেপণাস্ত্রের নতুন পরীক্ষাকে যুক্তরাষ্ট্রের জন্য ‘ভয়াবহ সতর্কবার্তা’ বলে উল্লেখ করেছেন তিনি।

 

উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্র পরিচালিত গণমাধ্যমের খবরে দেশটির সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উনের বরাত দিয়ে বলা হচ্ছে, পরীক্ষায় দেখা গেছে পুরো যুক্তরাষ্ট্র তাদের হামলার পরিসীমার মধ্যেই রয়েছে। প্রথম আইসিবিএম পরীক্ষা চালানোর দু’সপ্তাহের মাথায় উত্তর কোরিয়ার পক্ষ থেকে এ ধরনের মন্তব্য এলো।

 

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষাকে বেপরোয়া এবং উত্তর কোরিয়ার জন্য বিপজ্জনক আখ্যা দিয়েছেন। ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে উত্তর কোরিয়া বলছে, উৎক্ষেপণের ৪৭ মিনিট পর আইসিবিএম বিস্ফোরিত হয়েছে। ওই সময়ের মধ্যে ৩ হাজার সাতশ ২৪ কিলোমিটার অতিক্রম করেছে আইসিবিএম-টি। ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার বিষয়টিকে সফল বলেও দাবি করেছে পিয়ংইয়ং।

 

কোরিয়ান সেন্ট্রাল নিউজ এজেন্সি দেশটির সর্বোচ্চ নেতার বরাত দিয়ে বলছে, গর্বিতভাবে পরীক্ষাটির মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, যুক্তরাষ্ট্রের পুরো ভূখণ্ড এখন আমাদের ক্ষেপণাস্ত্রের পরীসীমার মধ্যেই রয়েছে।

এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, রকেটটির নাম ছিল হাওসং-১৪, গত ৩ জুলাই একই মডেলের ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছিল উত্তর কোরিয়া। সম্প্রতি পরীক্ষা চালানো আইসিবিএম গত ৩ জুলাইয়ের ক্ষেপণাস্ত্রের চেয়ে বেশি শক্তিশালী; পরবর্তী সময়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়ে তারা আরও বেশি ক্ষমতাসম্পন্ন ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালাতে পারে। যেটা যুক্তরাষ্ট্রের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক হবে।

 

উৎক্ষেপণের কয়েক মিনিটের মধ্যে, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান ও মার্কিন কর্মকর্তারা ক্ষেপণাস্ত্রটির অবস্থান, পরিসীমা, এবং মিসাইলের উৎক্ষেপণের সময় সম্পর্কে সবরকম তথ্য জানান। তবে এখন পর্যন্ত সম্পূর্ণ বিশ্লেষণ চূড়ান্ত করা হয়নি; তবে বেশ কিছু দিক নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

 

প্রথমত, ক্ষেপণাস্ত্রগুলো ১০ হাজার চারশ কিলোমিটার দূরত্বে হামলা চালানোর ক্ষমতা রাখে। উত্তর কোরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলের শহর রাসন থেকে ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করলে নিউইয়র্ক শহরে তা হামলা চালাতে পারবে।

 

দ্বিতীয়ত, মুপইয়ং নি এলাকা থেকে আইসিবিএম পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া। ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের এটা একেবারেই ভিন্ন একটা স্থান। আর ক্ষেপণাস্ত্রটি উৎক্ষেপণ করা হয়েছে স্থানীয় সময় রাত ১১টা ১১ মিনিটে। সচরাচর এই সময় ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালায় না উত্তর কোরিয়া। নজরদারি চালানো দেশগুলোকে বিভ্রান্ত করতেই বিভিন্ন স্থান ও নানা সময়ে তারা পরীক্ষা চালাচ্ছে।

 

যুক্তরাষ্ট্রের দাবি, উৎক্ষেপণ করা ওই ক্ষেপণাস্ত্র জাপানের উত্তর সাগরে বিস্ফোরিত হয়েছে।

 

ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা উ. কোরিয়ার
 

মন্তব্য

উপর