এই মাত্র পাওয়া

সর্ব শেষ সংবাদ

ভৈরবে জনসংযোগ ও সভা হলো না বিএনপিরঃ পুলিশের সহযোগীতায় শতাধিক গেইট ভেঙ্গেছে আ,লীগ

কিশোরগঞ্জ থেকে ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি, মোঃ মাইন উদ্দিন, দৈনিক প্রজন্ম ডটকম

প্রকাশিত: দুপুর ০২:০১, ১০ অক্টোবর ২০১৭, মঙ্গলবার | আপডেট: বিকাল ০৩:০৭, ১৮ নভেম্বর ২০১৭, শনিবার
ভৈরবে জনসংযোগ ও সভা হলো না বিএনপিরঃ পুলিশের সহযোগীতায় শতাধিক গেইট ভেঙ্গেছে আ,লীগ

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে পুলিশের সহযোগিতায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ রাতের আঁধারে বিএনপি নেতাকর্মীদের পক্ষ থেকে নিমার্ণ করা শতাধিক তোরণ (গেইট) ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়ে আগানগর ইউনিয়ন বিএনপি কর্তৃক আয়োজিত জনসংযোগ ও জনসভা বানচাল করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।


তাছাড়াও জনসভাকে পণ্ড করার পায়ঁতারায় লিপ্ত হয়ে পুলিশ ভৈরব উপজেলা বিএনপির সভাপতি মোঃ রফিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আরিফুল ইসলাম, পৌর বিএনপির সভাপতি সাবেক মেয়র হাজী মোঃ শাহিন সহ বিএনপির বিভিন্ন নেতাকর্মীদের বাড়িতে গভীর রাতে তল্লাশি চালায় বলে উপজেলা বিএনপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়।


অপরদিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরিফুল আলমের গ্রামের বাড়ি কুলিয়ারচরের বেতিয়ারকান্দিতে রোববার রাতে পুলিশ তল্লাশি চালায় বলে সাংবাদিকদের জানান কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা মোঃ শরিফুল আলম। তবে কাউকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে এমন অভিযোগ পাওয়া যায়নি।


এ ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কেন্দ্রীয় বিএনপি’র সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ও কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সভাপতি মোঃ শরিফুল আলমকে সংবর্ধনা দিতে গণসংযোগ সহ গুকুলনগর বাজার সংলগ বালুর মাঠে জনসভার আয়োজন করেছিল আগানগর ইউনিয়ন বিএনপি।


এ উপলক্ষে ইউনিয়ন নেতাকর্মীদের পক্ষ থেকে রাস্তায় শতাধিক গেইট ও তোরণ নির্মাণ সহ ব্যানার ও পেস্টুনে সজ্জিত করা হয়েছিল। অপরদিকে বিএনপির ওই সভা বানচালের উদ্দেশ্যে একই স্থানে গতকাল (৯ অক্টোবর) সোমবার বিকাল ৩টায় কর্মীসভা করার ঘোষণা দিয়ে এর আগের দিন রোববার সন্ধ্যায় মাইকিং করে স্থানীয় আওয়ামী লীগ।


আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এ ঘোষণা দেওয়ার পর রাতের আঁধারে জনসভাস্থল ও গুকুলনগর-আগানগর সড়ক ও এ এলাকায় শরীফুল আলমের ছবি সম্বলিত সবগুলো তোরণ/গেইট ও ব্যানার ভেঙ্গে  রাস্তার পাশে ও মাটিতে পেলে দেয়।

জনসভার মাঠের ব্যানার পিস্টুনও ছিন্নভিন্ন করে দেওয়া হয়। স্থানীয়রা সাংবাদিকদের জানায়, গতকাল রাতে
বিএনপির নিমার্ণধীন তোরণ গুলো পুলিশের সহযোগিতায় ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে।


সকাল থেকেই পুলিশ টহলে থাকায় আতংকে বিএনপি নেতাকর্মীরা এলাকার বাহিরে চলে গেলে এ ঘটনা ঘ।
আগানগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মোঃ আকবর আলী সাংবাদিকদের বলেন, আগামী ২৪ অক্টোবর স্থানীয় সাংসদ
আলহাজ্ব নাজমুল হাসান পাপন এর জনসভা আয়োজনকে কেন্দ্র করে গুকুলনগর বালুর মাঠে গতকাল সোমবার বিকাল ৩টায় কর্মীসভার আয়োজন করায় নেতাকর্মীরা ব্যস্ত সময় পাড় করছেন।
বিএনপির নেতাকর্মীদের পক্ষ থেকে নিমার্ণ করা
তোরণ পুলিশ ও আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে এমন অভিযোগের কথা অস্বীকার করে আওয়ামীলীগ নেতা আকবর আলী বলেন, আওয়ামী লীগের লোকজন এঘটনার সাথে জড়িত নয়।
তিনি আরোও জানান, বিএনপি নেতা মোঃ শরিফুল আলম ও বিএনপি গিয়াস উদ্দিনের দুই গ্রুপই এখানে শক্তিশালী, তাদের কোন্দলেই হয়ত এমন নেক্কারজনক ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেন তিনি।
আগানগর ইউনিয়ন ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি মোঃ লায়েছ মিয়া সাংবাদিকদের বলেন, আগামী ২৮ অক্টোবর আমাদের এমপি
পাপন সাহেবের জনসভাকে সফল করতে কর্মীসভা ডেকে তাঁরা কর্মীসভা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন।
এ ঘটনায় বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শরিফুল আলম বিএনপি নেতাকর্মীদের ধৈর্য্যধারণ করে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রতিটি অপকর্মের জবাব ভোটের মাধ্যমে দেয়া হবে তিনি এ ঘটনার বিচারের ভার বিবেকবান জনতার উপরে ছেড়ে দেন।
ভৈরব থানার ওসি তদন্ত মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ সাংবাদিকদের জানান, বিএনপি ও আওয়ামী লীগ একইস্থানে সভা ডেকেছে।
দুই পক্ষই একইস্থানে সভা ডাকায় আইনশৃংখলা বিঘ্নিত হতে পারে আশংকায় সেখানে পুলিশ দায়িত্বে ছিলেন।
পুলিশ কর্তৃক বিএনপির নির্মাণ করা গেইট ভাঙ্গা হয়েছে এমন অভিযোগ তিনি অস্বীকার
করেন।
এই রিপোর্ট  লেখা পর্যন্ত বিএনপি নেতা-কর্মীরা ছিলেন আতংকে।

ঢাকা বিভাগ এর আরও খবর