logo
শিরোনাম

মৌলভীবাজারে ডবল মার্ডার এর আসামী চিহ্নিত, গণমাধ্যমে ছবি প্রকাশ


মৌলভীবাজারে ডবল মার্ডার এর আসামী চিহ্নিত, গণমাধ্যমে ছবি প্রকাশ

মৌলভীবাজারে  দলীয় কোন্দলে দুই ছাত্রলীগ কর্মী খুনের ঘটনায় আরো ছ’জনকে শনাক্ত করেছে পুলিশ। এর আগে ঘটনায় জড়িত সন্দেহে রুবেল নামে একজনকে আটক করে পুলিশ।

 

সনাক্তরা হলেন, পৌর এলাকার ধরকাপন গ্রামের আজিজুল হক বুলুর ছেলে সৈয়দ ফারদিনুল হক সৌমিক(২২), শহরের শমশের নগর রোডের বাদশা মিয়ার ছেলে আরাফাত রহমান (২৪), রাজনগর থানার চকিরাই গ্রামের সিরাজুল ইসলাম মুক্তির ছেলে আশফাকুল ইসলাম মাহদি(১৮), মহলাল গ্রামের আইয়ুব হাসানের ছেলে তামিম হাসান (২২), সদর উপজেলার মাথারকাপন গ্রামের জাফির মিয়ার ছেলে প্রথিক (২২), মৌলভীবাজার পৌর এলাকার বড়হাট গ্রামের আফিকুল চৌধুরীর ছেলে তুষার (২৫)।  এরা ঘটনার পর থেকে তারা পলাতক রয়েছে ।

 

এদিকে শনিবার (৯ডিসেম্বর) স্থানীয় ক্যাবল টিভি এমসিএস- এ তাদের ছবি প্রকাশ করে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছেন জেলা পুলিশ প্রশাসন। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে মৌলভীবাজারে ডবল মার্ডারে ঘটনায় এরা সন্দেহাতিত আসামী। 


বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলায় হয়, তাদের ধরিয়ে দিলে ৫০ হাজার টাকা পুরস্কৃত করা হবে। কেউ তাদের প্রশ্রয় দিলে তার বিরুদ্ধে কঠুর আইনি ব্যবস্থা গ্রহন করবে পুলিশ। তবে তাদের নাম ঠিকানা এখনো নিশ্চিত করেনি পুলিশ। স্থানীয় ক্যাবল টিভি এম সি এস,এ ছবি প্রকাশের পর গণমাধ্যম কর্মীরা এদের নাম পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হন।

 

এ ব্যাপারে মৌলভীবাজার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুহেল আহমদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান পুলিশ জোড়া খুনের ঘটনায় জড়িত সন্ধেহে রুবেলকে শুক্রবার ভোর রাতে রাজনগর থেকে গ্রেফতার করা হয়। 
রুবেলকে জিজ্ঞাসাবাদে গুরুত্বপূর্ন তথ্য দেয় পুলিশের কাছে। জোড়া খুনের ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত থাকার সন্দেহে জেলা পুলিশ এই  ছবি গুলো শনিবার রাতে প্রকাশ করেছে।

 

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহজালাল জানান, সন্দেহবাজনদের ধরে দিতে পারলে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ৫০ হাজার টাকা পুরুস্কার দেয়া হবে। সন্ধান দাতা ব্যাক্তির পরিচয় গোপন রাখা হবে। এদের আশ্রয় দাতাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার (৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে শহরের সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠের পশ্চিম -দক্ষিণ পাশে এই নারকীয়  ঘটনা ঘটে। 

 

দলীয় কোন্দলের জের ধরে দুই ছাত্রলীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। পরে স্থানীয়রা আহতাবস্থায় তাদের উদ্ধার করে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

 

এরা হলেন, শহরের পুরাতন হাসপাতাল রোডের বাসিন্দা আবু বক্কর সিদ্দিকের ছেলে শাহবাব রহমান (২৩), তিনি কলেজ ছাত্র। অপরজন সদর উপজেলার দুর্লবপুর গ্রামের বিলাল হোসেনের ছেলে নাহিদ আলম মাহি (১৮)তিনি ছিলেন এসএসসি পরীক্ষার্থী।

মন্তব্য

উপর