logo
শিরোনাম

World Telecommunication and Information Society Day উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী


World Telecommunication and Information Society Day উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা World Telecommunication and Information Society Dayউপলক্ষে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন :
“বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও ১৭ মে ২০১৮ World Telecommunication and Information Society Day পালন করা হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য 'Enabling the Positive use of Artificial Intelligence for All'  অত্যন্ত সময়োপযোগী হয়েছে বলে আমি মনে করি।  

আওয়ামী লীগ সরকার গত সাড়ে নয় বছরে টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তির সুফল দেশের প্রতিটি প্রান্তে পৌঁছে দিতে প্রযুক্তির অবকাঠামো উন্নয়ন, প্রায়োগিক উৎকর্ষ সাধন, ব্যাপক ব্যবহার নিশ্চিত করাসহ এ খাতে ব্যাপক উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছে। ইন্টারনেট ডেনসিটি বৃদ্ধি, সাবমেরিন ক্যাবলের ক্যাপাসিটি বৃদ্ধি, নতুন সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপনসহ টেলিযোগাযোগ খাতের সেবাসমূহ আধুনিক ও যুগোপযোগী করা হয়েছে। তথ্যপ্রযুক্তিবান্ধব নীতি প্রণয়ন করা হয়েছে। দেশের ৯৯ ভাগ এলাকা এখন মোবাইল নেটওয়ার্কের আওতায় এসেছে। দেশে ফোর-জি প্রযুক্তির নেটওয়ার্ক চালু করা হয়েছে। ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১’ টেলিযোগাযোগ খাতের যুগান্তকারী উন্নয়ন ঘটাবে।

ইউনিয়ন পর্যায়ে অপটিক্যাল ফাইবার সংযোগ, প্রায় সকল উপজেলায় অপটিক্যাল ফাইবার কানেকটিভিটি, সকল জেলায় ‘জেলা তথ্য বাতায়ন’ এবং দেশের প্রতিটি ইউনিয়নে ‘ইউনিয়নে তথ্য ও সেবাকেন্দ্র’  প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে পারস্পরিক যোগাযোগকে দ্রুত ও সহজতর করা হয়েছে। এসকল উদ্যোগ বাস্তবায়নের ফলে সরকারি সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়া সম্ভব হয়েছে। দেশের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, ব্যবসাবাণিজ্য, সামাজিক যোগাযোগসহ প্রতিটি খাতে অমিত সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হয়েছে। তরুণ প্রজন্মের জন্য নতুন নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন আর স্বপ্ন নয়, একটি বাস্তবতা।

আমি আশা করি, দিবসটি পালনের মাধ্যমে দেশের সর্বস্তরের জনগণ টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তির বিভিন্ন দিক বিশেষ করে তথ্যপ্রযুক্তির কল্যাণে সৃষ্ট ‘কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা’ সম্পর্কে আরো জানতে পারবেন এবং এর সুফল ভোগ করবেন।    

আমি Ô World Telecommunication and Information Society Day 2018Õ- এর সার্বিক সাফল্য কামনা করছি।  
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু
বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”

মন্তব্য

উপর