logo

পত্নীতলায় স্কুল ছাত্রী অপহরণের ১৩ দিন পর উদ্ধার, আটক ২


পত্নীতলায় স্কুল ছাত্রী অপহরণের ১৩ দিন পর উদ্ধার, আটক ২

নওগাঁ পত্নীতলা সদর নজিপুর মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে ১০ম শ্রেণির ছাত্রী কে অপহরনের ১৩দিন পর সস্ত্রীক উদ্দার করেছে পুলিশ।

বুধবার দিবাগত ভোর রাতে কুষ্টিয়া জেলা দৌলতপুর উপজেলা ফিলিপ পাড়া গ্রাম থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। স্থানীয়দের সহায়তায় অপহরকারী মেহেদী হাসান (২১) ও মেরিনা বেগম (৪০) কে আটক করা হয়। সে উপজেলার নজিপুর পৌরসভার পালশা এলাকার মন্টু ইসলামের ছেলে ও স্ত্রী।

থানা সূত্রে জানা যায়, নজিপুর পৌরসভা হরিরামপুর এলাকা ইছারুলের মেয়ে ও নজিপুর মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেনীর ছাত্রী কে দীর্ঘদিন ধরে রাস্তাঘাটে কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন পালশা এলাকার মন্টু ইসলামের ছেলে মেহেদি হাসান। প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় গত ০৩ মে সকাল ১০.৩০ টায় নজিপুর মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের গেটের সামনে থেকে তাকে অপহরন করে মেহেদি। মেয়ের কোন সন্ধান না পেয়ে ১৫ মে পত্নীতলায় থানায় অপহরনের অভিযোগে মামলা করেন বাবা ইসারুল ইসলাম।

 মামলার সূত্র ধরে পত্নীতলা থানার এস,আই আরিফুল ইসলাম এর নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম অপহরনকারীর মা মেরিনা বেগমকে হেফজতে নিয়ে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলার ফিলিপ পাড়া গ্রাম থেকে ভিক্টিমকে উদ্ধার ও অপহরনকারী মূল হোতা মেহেদীকে আটক করে পুলিশ। বৃহষ্পতিবার ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য ভিক্টিমকে নওগাঁ সিভিল সার্জনের তত্বাবধানে পাঠানো হয়।
এ বিষয়ে পত্নীতলা থানা অফিসার ইনচার্জ মো.মাজাহারুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, অপহরনকারী মেহেদী ও মেরিনা কে কোর্ট মারফত হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

মন্তব্য

উপর