logo
শিরোনাম

দেশে এই প্রথম কৃষিবিদ হলেন কৃষিমন্ত্রী


দেশে এই প্রথম কৃষিবিদ হলেন কৃষিমন্ত্রী

দেশে প্রথমবারের মতো কৃষি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেলেন কোন কৃষিবিদ। বাংলাদেশ সরকারের কৃষি বিষয়ক
মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেয়েছেন টাঙ্গাইল-১ (মধুপুর-ধনবাড়ী) আসনের সংসদ সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও  আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কৃষিবিদ ড. আব্দুর রাজ্জাক, এম.পি। রবিবার বিকালে আনুষ্ঠানিকভাবে নতুন সরকারের মন্ত্রিসভার সদস্যদের নাম ঘোষণা করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। 

সোমবার (৭ জানুয়ারি)বিকাল সাড়ে তিনটায় বঙ্গভবনে নতুন মন্ত্রিসভার শপথ অনুষ্ঠিত হবে। রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ শপথ বাক্য পাঠ করাবেন।


ড. আব্দুর রাজ্জাক ১৯৭১ সনে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক এবং ১৯৭২ সনে একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন। ১৯৮২ সনে যুক্তরাষ্ট্রের পারডু বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি পিএইচডি অর্জন করেন। যুক্তরাষ্ট্রের পর তিনি যুক্তরাজ্যের অ্যাঞ্জেলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়েও পড়ালেখা করেছেন। 

বাংলাদেশে ফার্মিং সিস্টেম রিসার্চ ও স্থায়ী গ্রামীণ কৃষি উন্নয়ন বিষয়ে তিনি অন্যতম একজন বিশেষজ্ঞ। 

আব্দুর রাজ্জাক টাংগাইল জেলার ধনবাড়ী উপজেলার মুশুদ্দি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম জালাল  উদ্দিন এবং মাতার নাম রেজিয়া খুতুন। রাজ্জাক, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনে (বিএডিসি) একজন বৈজ্ঞানীক কর্মকর্তা হিসেবে যোগদানের মাধ্যমে তার কর্মজীবন শুরু করেন এবং ২০০১ সনে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা পরিষদের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা হিসেবে চাকুরীজীবন শেষ করেন। 

২০০১ সন থেকে টাঙ্গাইল-১ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় টিকেট পান কৃষিবিদ সাবেক ছাত্রনেতা বীর
মুক্তিযোদ্ধা ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক। তিনি সে বছর আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির কৃষি ও সমবায় বিষয়ক
সম্পাদক নির্বাচিত হন। পরে ২০০৮ সনে নবম সংসদ নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীকে হারিয়ে বিপুল ভোটে জয় লাভ করেন এবং আওয়ামী লীগ সরকারের খাদ্য ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। পরবর্তীতে ২০১৪ সনে ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য নির্বাচিত হন ও অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পান।


একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য হন তিনি। আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মনোনয়নের সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ড।

মন্তব্য

উপর