logo
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সকল খবর এক ক্লিকে পড়তে ক্লিক করুন

বাংলাদেশের অর্থ চুরি: ফিলিপাইনে ব্যাংকারের সাজা


বাংলাদেশের অর্থ চুরি: ফিলিপাইনে ব্যাংকারের সাজা

বছর তিনেক আগে বিশ্বকে কাঁপিয়ে দেয়া বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় সংশ্লিষ্ট অর্থপাচারে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন ফিলিপাইনের আরসিবিসি ব্যাংকের সাবেক শাখা ব্যবস্থাপক ম্যাইয়া সান্তোস ডিগুইটো। বৃহস্পতিবার দেশটির অর্থনৈতিক কেন্দ্র মেকাটি শহরের একটি আদালত এ রায় দিয়েছেন।

২০১৬ সালে বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অর্থ চুরির ঘটনায় এই প্রথমবারের মতো কাউকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।

ফিলিপাইনের ঋণদাতা প্রতিষ্ঠান রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকের একটি শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক ডিগুইটো অর্থপাচারের আটটি অভিযোগে মেকাটি আঞ্চলিক বিচার আদালতে দোষী সাব্যস্ত হন।

প্রতিটি অভিযোগের বিপরীতে তার চার থেকে সাত বছরের কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে। এ ছাড়া ১১ কোটি ডলার জরিমানা করা হয়েছে তাকে।


রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ ঘটনায় সাজাপ্রাপ্ত প্রথম ব্যক্তি মায়া সান্তোস দেগুইতো। কারাদণ্ড ছাড়াও তাকে ১০৩ মিলিয়ন ডলারের জরিমানা করেছেন আদালত। তবে রায়ে হতাশার কথা জানিয়ে মায়ার আইনজীবী ডেমি কাস্টোডিয়ো জানিয়েছেন, তিনি এ বিষয়ে উচ্চ আদালতের শরণাপন্ন হবেন। আপিলের শুনানি শেষ না হওয়া পর্যন্ত তার মক্কেলকে কারাগারে পাঠানোর সুযোগ নেই।

আদালতের রায়ে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাংক থেকে তহবিল হাতিয়ে নেওয়া এবং অজ্ঞাত ব্যক্তির অ্যাকাউন্টে অর্থ জমা করার বিষয়টি মায়া সন্তোস দেগুইতো নিজেই তত্ত্বাবধান করেছিলেন। তবে নিজের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করে আসছেন মায়া সান্তোস দেগুইতো। তার দাবি, তিনি যা কিছু করেছেন তা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশেই করতে হয়েছে।

আইনজীবী ডেমি কাস্টোডিয়ো বলেন, তার মক্কেল যে প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন সেখানকার দায়িত্ব পালনের জন্য তাকে দায়ী করার সুযোগ নেই। এমনকি ব্যক্তির অপারেশনাল কাজের সঙ্গেও তার কোনও সম্পর্ক নেই। কেননা তার দায়িত্ব ছিল কাস্টমার কেয়ার বিষয়ক। এ বিষয়টি তিনি আদালতের নজরে এনেছেন।
 

মায়া সান্তোস দেগুইতো’র দাবি অবশ্য নাকচ করে দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার আদালতের ২৬ পৃষ্ঠার রায়ে মায়ার এমন দাবিকে বড় ধরনের মিথ্যাচার হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

২০১৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংকের সিস্টেম হ্যাকড করে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে হ্যাকাররা ৮১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থ চুরি করে ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং কর্পোরেশনের (আরসিবিসি) জুপিটার শাখার চারটি অ্যাকাউন্টে স্থানান্তর করে। সেখান থেকে তা দেশটির ক্যাসিনোগুলোতে চলে যায়।

এ ঘটনায় ব্যাংকের সিইও লরেঞ্জ তান জুপিটার শাখার ব্যবস্থাপক সান্তোস দিগুইতোকে দায়ী করে আসছেন শুরু থেকেই। তবে দিগুইতো বলেছেন, আর্থ কেলেঙ্কারির হোতারা তাকে দাবার ঘুঁটি বানিয়েছে। ব্যাংকের সিইও সবই জানতেন।

মন্তব্য

উপর