logo
Floating 2
Floating

আশুলিয়ায় চলন্ত বাসে ডাকাতিকালে ৮ ডাকাত গ্রেপ্তার


আশুলিয়ায় চলন্ত বাসে ডাকাতিকালে ৮ ডাকাত গ্রেপ্তার
আশুলিয়ার  ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের দুরপাল্লার চলন্ত বাসে যাত্রী বেশে ডাকাতির ১৫ দিনের মাথায় আবার ডাকাতির প্রস্তুতির সময় পুলিশের কাছে হাতে নাতে গ্রেপ্তার হয় আন্ত:জেলা ডাকাতের এই ৭ সদস্য। এরআগে গ্রেপ্তার ডাকাত হুমায়নের তথ্যের সূত্র এই অভিযান চালানো হয়। তল্লাশী চালিয়ে ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত দেশী অস্ত্র জব্দ করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় হত্যা ও ডাকাতিসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

সোমবার দুপুরে আশুলিয়া থানায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই তথ্য জানানো হয়।  পরে তাদের ৩ টি মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো: নারায়নগঞ্জের মো.শাহিনুর রহমান, রংপুরের পীরগঞ্জের তাজুল ইসলাম, নাটোরের বড়াইগ্রামের এছার উদ্দিন, নড়াইল লোহাগড়ার হাচানুর রহমান, ফরিদপুরের কোতয়ালীর কামরুল হাসান, গাইবান্ধার মো. শরিফুল ইসলাম, জামালপুরের খোরশেদ আলম ও নারায়নগঞ্জ রুপগঞ্জের হুমায়ন।

মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা আশুলিয়াল থানার এস আই বিলায়েত হোসেন জানান, গত ৩১ মার্চ চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা এস আলম পরিবহনের একটি দুরপাল্লার চলন্ত বাসে আশুলিয়ার নবীনগরে ডাকাতির ঘটনায় এক ডাকাত সদস্যকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গ্রেপ্তার ডাকাতের তথ্যের ভিত্তিতে গতরাতে সিলেট থেকে ছেড়ে আসা পূর্বাশা নামে আরও একটি দুরপাল্লার বাসে আশুলিয়ার নয়ারহাটে ডাকাতির প্রস্তুতি সময় বাকী সদস্যেদের গ্রেপ্তার করা হয়। তল্লাশী চালিয়ে আগের লুন্ঠিত মালামাল, দেশীয় অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার করা হয়।

এ বিষয়ে অভিযানে অংশ নেয়া আশুলিয়া থানার এস আই মনিরুজ্জামান (পিপিএম) জানান, এই চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে চলন্ত বাসে ডাকাতির করে আসছে। এদের ১০-১২ জনের দল থাকে। যেমন- গতরাতে সিলেট থেকে ছেড়ে আসা পূর্বাশা পরিবহনের দুরপাল্লার বাস  ডাকাতির প্রস্তুতি হিসেবে প্রথম থেকেই টিকেট কেটে বাসে এক-দুইজন উঠে পড়ে। তারপর দলেও বাকী সদস্যরা বিভিন্ন সড়কে অবস্থা নেয় যাত্রী বেশে বাসের উঠার জন্য। বাস কোথায় আছে বা কতদুর এলো। এসব তথ্য ভিতরে থাকা ডাকাতরা বাকীদের দিতে থাকে। পরে সবাই উঠে গেলে নির্জন স্থান দেখে বাসের নিয়ন্ত্রণ নেয়। পরে যাত্রীদের মারধর করে মালামাল লুট করে বাস ফেলে পালিয়ে যায়। তেমনি গতরাতে ঢাকাত নেতা শাহিনুর রহমানকে পূর্বাশা বাসের ভিতর থেকে যাত্রী বেশে থাকা অবস্থায় গ্রেপ্তার করা হয়।

আশুলিয়ার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রিজাউল হক জানান, এই ডাকাত চক্রটি ঢাকা জেলাসহ নারায়নগঞ্জ, নরসিংদী, সিলেটসহ বিভিন্ন মহাসড়েকর দুরপাল্লার বাসে যাত্রী বেশে ডাকাতি করে। বিভিন্ন নাম করা পরিবহনের দুরপাল্লার বাসের যাত্রীদের ক্ষেত্রে ভিডিও ছবি নিয়ে থাকে। কিন্তু অন্যান্য পরিবহন তা করে না। ফরে এধরনের ঘটনা এড়াতে পরিবহন মালিক ও যাত্রীদের আরও সচেতন হতে হবে। যাত্রীদের তথ্য ও মোবাইল নম্বর বা প্রয়োজনের ভোটার অঅইডিও সংগ্রহ করে রাখেতে পারেন।

এদিকে গ্রেপ্তার ডাকাতদের বিরুদ্ধে মাদক, ডাকাতির প্রস্তুতি ও ডাকাতির ঘটনায় মোট ৩ টি মামলা দায়ের করা হয়।


দৈনিক প্রজন্ম ডট কম/ জো, ই/ ১৯/

মন্তব্য

উপর