logo
Floating 2
Floating

গ্রন্থাগারে আসন সংখ্যা বৃদ্ধির দাবি রাবি ছাত্রলীগের


গ্রন্থাগারে আসন সংখ্যা বৃদ্ধির দাবি রাবি ছাত্রলীগের

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের আসন সংখ্যা বৃদ্ধি ও সংস্কারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে ছাত্রলীগ। বৃহস্পতিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। দেড় ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন শেষে গ্রন্থাগারে নিজস্ব বইপত্র নিয়ে প্রবেশের অনুমতি প্রদানসহ ৯ দফা দাবি জানিয়ে উপাচার্য বরাবর একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

মানববন্ধনে রাবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনুর সঞ্চালনায় সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন, ‘গ্রন্থগারে জায়গা নিতে একজন শিক্ষার্থীকে রাত সাড়ে তিনটা-চারটার দিকে আসতে হয়। অত্যন্ত কষ্ট হয় এবং খারাপ লাগে, কী করে একজন শিক্ষার্থীকে এতো আগে ঘুম নষ্ট করে সিট ধরতে হয়! তবুও আরামে সিট ধরা যায় না। সিট ধরার পরে আবার সকাল আটটার মধ্যে এসে সেখানে প্রবেশ করতে হয়। না হলে সে সিট থাকে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের মাত্র ১১৮ জন শিক্ষার্থী সেখানে পড়ার সুযোগ পায়, বাকিরা সুযোগ পায় না। ঢাবিসহ অন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সামনে এগিয়ে যাচ্ছে। বিসিএস ক্যাডার হচ্ছে। সেখান থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় অনেকটায় পিছিয়ে আছে, শুধু মাত্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের গাফিলতির কারণে। মানববন্ধন থেকে আগামী দিনে এই যৌক্তিক দাবিগুলো আদায় না হওয়া পর্যন্ত সাধারণ শিক্ষার্থীদের সাথে নিয়ে রাজপথে কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন তিনি।
মানববন্ধনে সহ-সভাপতি হাবিবুল্লাহ নিক্সন বলেন, ‘‘৫ ফেব্রুয়ারি জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস উদযাপনের দেখেছি প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা শোভাযাত্রায় সবাই হাস্যজ্জ্বল হয়ে ব্যানার নিয়ে দাঁড়িয়েছিল। সেই ব্যানারে লেখা ছিল ‘গ্রন্থাগারে বই পড়ি, আলোকিত মানুষ গড়ি’। আমার মনে হয় এটাও একটা হঠকারিতা, যেই গ্রন্থাগারে তারা ৩৮ হাজার শিক্ষার্থীদের এক হাজারকে জায়গা দিতে পারে না, তারা সেখানে কিভাবে আলোকিত মানুষ গড়বে?...বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা ভর্তি আছে তাদের সংখ্যা থেকে শুরু করে হাজার হাজার লাখো লাখো শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যুদ্ধ করে, এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৮ হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে শুধুমাত্র ১১৮ জনকে দিয়েই তারা আলোকিত মানুষ গড়ার স্বপ্ন দেখে? প্রশাসনের এই হঠকারীতাকে আমি ঝিক্কার জানাচ্ছি। ২০১৪ সালে বিশ্বব্যাংক রাবি গ্রন্থাগারের উন্নয়নের জন্য ৩ কোটি ২৯ লক্ষ টাকা দিয়েছিল। ‘চুনকাম’ ছাড়া ৩ কোটি ২৯ লক্ষ টাকার কোনো উন্নয়ন আমরা আজ পর্যন্ত দেখতে পাচ্ছি না।’ এসময় তিনি গ্রন্থাগারে মুক্তিযুদ্ধ কর্ণার ও বঙ্গবন্ধু কর্ণার স্থাপন এবং গ্রন্থাগার সকলের জন্য উন্মুক্ত করার দাবি জানান।
এসময় সাংগঠনিক সম্পাদক ইমরান খান নাহিদ বলেন, ‘‘রাবি ছাত্রলীগ সবসময় সাধারণ শিক্ষার্থীদের দাবি পুরণের কথা বলেছে। আপনারা দেখেছেন ‘শোভা আন্দোলনের’’ সময় ছাত্রলীগের যে ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম ফলে শোভাকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছিল। বাংলাদেশে বিগত দশ বছরের আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতা থাকাকালে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে গোলাগুলির কারণে-অস্ত্রবাজির কারণে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়নি। আমরা কেউই আওয়ামী লীগ সরকারকে ধন্যবাদ জানাতে চাই না। এটা আমাদের কার্পণ্যতা।’

এসময় বক্তব্য দেন, রাবি শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি স্বরূপ সুপ্ত সাহা, খালিদ মুনতাসির এলাহী, রুহুল আমিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাব্বির হোসেন, সাদ্দাম হোসেন সজিব, সহ-সম্পাদক সুমন আহমেদ সান, সাংগঠনিক সম্পাদক চঞ্চল কুমার অর্ক, প্রচার সম্পাদক কামরুল হাসান, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক রবিউল সরকার রুবেল, উপ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক তাওহীদুল ইসলাম, উপ-পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক সুলতান, কলা অনুষদের সহ-সভাপতি আব্দুল লতিফ, আইন অনুষদের সাংগঠনিক সম্পাদক জান্নাতুন নায়িমা, মার্কেটিং বিভাগের সাদেকুল ইসলাম সাদ্দাম, কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের আব্দুল্লাহ আল মামুন। এসময় দুই শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।


দৈনিক প্রজন্ম ডট কম/ জো, ই/২০১৯/

মন্তব্য

উপর