logo
Floating 2
Floating

সম্ভাব্য বাজেট সোয়া ৫ লাখ কোটি টাকা


সম্ভাব্য বাজেট সোয়া ৫ লাখ কোটি টাকা

আগামী ২০১৯-২০ অর্থবছরে বাজেটের সম্ভাব্য আকার নির্ধারণ করা হয়েছে ৫ লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা। এ ব্যয় মেটাতে রাজস্ব আহরণ লক্ষ্য ধরা হয় ৩ লাখ ৬০ হাজার কোটি টাকা। পাশাপাশি নতুন সরকারের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ৮ দশমিক ২ শতাংশ।

বুধবার অনুষ্ঠিত অর্থনৈতিক কো-অডিনেশন কাউন্সিলের বৈঠকে এটি প্রাথমিকভাবে চূড়ান্ত করা হয়েছে। ওই বৈঠকে চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট সংশোধন করা হয়। সেখানে কাটছাঁট করা হয়েছে ২০ হাজার কোটি টাকা। এতে সংশোধিত বাজেটের আকার দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ৪৬ হাজার কোটি টাকা। সংশ্লিষ্ট সূত্রে পাওয়া গেছে এসব তথ্য।

তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদন দেয়ার আগে এর আকারেও পরিবর্তন আসতে পারে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের প্রথম বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হচ্ছে ইতিহাস সৃষ্টিকারী। যার পরিমাণ তিন লাখ ৭২ হাজার কোটি টাকা। যা চলতি অর্থ বছরে ছিল তিন লাখ ৩৯ হাজার ২৮০ কোটি টাকা। অর্থাৎ এক বছরে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা বাড়ছে ৩২ হাজার কোটি টাকা। আয়-ব্যয়ের বিশাল লক্ষ্যমাত্রায় ঘাটতিও হবে এ যাবতকালের সবচেয়ে বড়। যার পরিমাণ দেড় লাখ কোটি টাকারও বেশি।

চলতি অর্থবছরের বাজেট চার লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা। বৈদেশিক ঋণ ও সহায়তার ওপর নির্ভর না করে ধীরে ধীরে নিজস্ব অর্থায়নে বাজেট প্রণয়নের কথা ভাবছেন সংশ্লিষ্টরা। তাই আগামী বাজেটে আয়কর ও ভ্যাটের আওতা বাড়ানো হচ্ছে।

বুধবার অর্থ মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত আর্থিক, মুদ্রা ও মুদ্রাবিনিময় হার সংক্রান্ত কো-অর্ডিনেশন কাউন্সিলের বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বৈঠক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, প্রথমবারের মতো বাজেট দিতে যাওয়া অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের এটি প্রথম কো-অর্ডিনেশন কাউন্সিলের বৈঠক। বৈঠকে মন্ত্রী প্রথমেই চলতি অর্থবছরের বাজেট নিয়ে আলোচনা করেন। বিশেষ করে রাজস্ব খাত নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি। কারণ, গত সাত মাসে এনবিআরের গ্রোথ রেট ৭ দশমিক ১ শতাংশ, যা গত বছর ছিল ১৫ দশমিক ৬৪ শতাংশ।

বৈঠকে বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়ানোর পাশাপাশি সরকারি বিনিয়োগ বাড়ানো নিয়ে আলোচনা হয়। কারণ সরকারি বিনিয়োগ বাড়লে অবকাঠামোর উন্নতি হয়। অবকাঠামো বাড়লে তখন ব্যক্তি খাতের বিনিয়োগ উৎসাহিত হয়। এতে কর্মসংস্থান বাড়বে।

বাজেটে কৃষি ঋণের প্রবাহ, গ্রামীণ ক্ষুদ্র শিল্পে ঋণের জোগান বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দেয়া হয়। তবে নতুন বাজেটে চমক হিসেবে থাকবে বহুল আলোচিত তিন স্তরের ভ্যাট ঘোষণা, পহেলা জুলাই থেকে নতুন ভ্যাট আইনের আংশিক কার্যকর, অটোমেশনের মাধ্যমে সঞ্চয়পত্র সেবা চালু, খেলাপি ঋণ আদায়ে অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি গঠন, কর্পোরেট কর হার হ্রাসের বিষয়।

কৃষকদের আনা হবে বীমার আওতায়, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি থেকে বের করে আনতে সংশ্লিষ্ট পরিবারে একটি করে চাকরি দেয়ার কর্মসূচিও ঘোষণাতে থাকবে বলে জানা গেছে। নির্বাচনী ইশতেহার অনুসারে ‘আমার গ্রাম আমার শহর’ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে মনোযোগ দেয়া হবে বাজেটে। সে ধারাবাহিকতায় দেশের প্রতিটা গ্রাম শহরে রূপান্তর করা হবে। যেখানে সেখানে হাটবাজার হবে না। জমি সাশ্রয় করে কৃষিকাজে ব্যবহার করা হবে। দেশের তরুণেরা ভবিষ্যৎ। তরুণ

প্রজন্মের জন্য বেশি বেশি কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা হবে। এমন সব উদ্যোগ থাকবে বাজেটে।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে টেকসই অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য উৎপাদন খাতের অবদান জিডিপিতে বেশি হতে হবে। দেশের অর্থনীতি এখন সেদিকেই যাচ্ছে। কৃষির চেয়ে শিল্প খাতের অবদান বাড়ছে। আগামী অর্থবছরের বাজেটে কৃষি খাতের অবদান ১৩ দশমিক ৩ শতাংশ অর্জনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। গত বাজেটে এ হার ছিল ১৪ দশমিক ৭ শতাংশ। আগামী বাজেটে শিল্প খাতের অবদানের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হচ্ছে ৩৫ দশমিক ২ শতাংশ। গত বাজেটে ছিল শিল্প খাতে ৩২ দশমিক ৪ শতাংশ। আগামী বাজেটে সেবা খাতে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হচ্ছে ৫১ দশমিক ৬ শতাংশ।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ভ্যাট আইন-২০১২ আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) চাপাচাপিতে করা হয়েছিল। কিন্তু বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি। এবার তা বাস্তবায়ন করা হবে। কেননা রাজস্ব আদায় বাড়াতে হলে এর কোনো বিকল্প নেই। যেকোনো দেশের ট্যাক্স জিডিপি রেশিও ১৫ থেকে ১৬ শতাংশ। অথচ আমাদের মাত্র ১০ শতাংশ। এ জন্যই সবাইকেই ভ্যাট দিতে হবে। তাহলে রাজস্ব আদায় বাড়বে।

তিনি বলেন, নতুন অর্থবছরের প্রথম দিন থেকেই ভ্যাট আইন কার্যকর হবে। এতে ভ্যাটের স্তর হবে তিনটি। যাকে বহুস্তর ভ্যাটব্যবস্থা বলা হয়। এতে ব্যবসায়ীরাও সম্মতি দিয়েছেন। আইনে ভ্যাটের স্তরগুলো হবে ৫, সাড়ে ৭ এবং ১০ শতাংশ।


দৈনিক প্রজন্ম ডট কম/ জো, ই/ ২০১৯/

মন্তব্য

উপর