logo
Floating 2
Floating

যুবলীগের নেতৃত্বে আসছেন শেখ ফজলুর রহমান মারুফ


যুবলীগের নেতৃত্বে আসছেন শেখ ফজলুর রহমান মারুফ

দীর্ঘ প্রায় এক দশক পর বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আগামী সেপ্টেম্বর মাসে। বাংলাদেশে আওয়ামী যুবলীগের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। কাউন্সিল অধিবেশনের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। জেলা পর্যায়ে সম্মেলনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। 

যুবলীগের একজন শীর্ষস্থানীয় নেতা বলেছেন যে, যেহেতু এখন রমজান চলছে, রমজানের পরপরই জেলা এবং বিভাগীয় পর্যায়ের সম্মেলন সমাপ্ত করা হবে।

আগামী সেপ্টেম্বরে যেন কাউন্সিল হয় সে ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মতামত নেওয়া হবে। অবশ্য এর আগেও যুবলীগের পক্ষ থেকে দুই বার কাউন্সিল অধিবেশনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুমতি চাওয়া হয়েছিল। কিন্তু রাজনীতির ব্যাস্ততার কারনে যুবলীগের কাউন্সিল করা সম্ভব হয়নি। যার ফলে যুবলীগের বর্তমান চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশীদ দীর্ঘ প্রায় এক দশক ধরে যুবলীগ পরিচালনা করছেন। 

যুবলীগের বর্তমান চেয়ারম্যান জানিয়ে দিয়েছেন যে, তিনি কোন অবস্থাতেই যুবলীগের দায়িত্ব আর অব্যাহত রাখতে চান না। তিনি মূল ধারার রাজনীতি করতে চান। এই প্রেক্ষিতেই নতুন করে কাউন্সিল এবং নতুন নেতৃত্বের গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগে। যুবলীগের নেতৃত্বে কে আসবে এনিয়ে নানা আলাপ আলােচনা শুরু হয়েছে। যদিও এটা চূড়ান্ত করবেন বাংলদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে যুবলীগের বিভিন্ন পর্যায়ে যাদের নাম উঠে এসেছে তাদের মধ্যে  অন্যতম: শেখ ফজলুর রহমান মারুফ।

শেখ ফজলুর রহমান মারুফ, একাধারে রাজনৈতিক ও সাবেক বাংলার বানী পত্রিকার সম্পাদক এবং ১৯৭৫ এর ১৫ই আগষ্ট এর পরবর্তিতে আজকের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার পাশে থেকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সংগঠনকে পর্দার অন্তরালে থেকে সুসংগঠিত করেছেন। তিনি বার বার নির্বাচিত সংসদ সদস্য সাবেক মন্ত্রী, জননেতা শেখ ফজলুল করিম সেলিম এর ছোট ভাই।

সর্বপরি এশিয়া মহাদেশের সর্ববৃহৎ যুব সংগঠন বাংলদেশ আওয়ামী যুবলীগ এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শহীদ শেখ ফজলুল হক মনির ছোট ভাই। তিনি এখন বাংলদেশ আওয়ামী যুবলীগ এর প্রেসিডিয়ামের অন্যতম সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

মির্জা আজম: যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মন্ত্রী মির্জা আজমের নামও যুবলীগের চেয়ারম্যান হিসেবে আলােচনায় আছে। যুবলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে তিনি অনেক জনপ্রিয় থাকায় আলােচনায় আসছেন বলে অনেকে মনে করছেন। তবে যুবলীগ ছেড়ে দিয়ে নতুন করে এই সংগঠনের চেয়ারম্যান হওয়ার তার তেমন আগ্রহ নেই বলে তিনি তার ঘনিষ্ঠদের জানিয়েছেন।

শেখ ফজলে নূর তাপস: এ ছাড়া চমক হিসেবে নাম আসছে শেখ ফজলে নূর তাপসের নামও। তিনি যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা শেখ ফজলুল হক মনির ছেলে। তাকে চেয়ারম্যান বিবেচনা করতে গেলে আবেগই সবচেয়ে বড় কারণ বলে জানা গেছে। তবে তাপস যুবলীগের চেয়ারম্যান হতে কতটা প্রস্তুত বা আগ্রহী সে প্রশ্ন রয়ে গেছে। ব্যস্ত আইনজীবি হিসেবে তিনি দলের কার্যক্রমেই সময় দিতে পারেন না। তারপরে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সবথেকে শক্তিশালী অঙ্গ সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের দায়িত্ব নেওয়ার মতাে তার প্রস্তুতি রয়েছে কিনা সে প্রশ্ন থেকেই যায়।


যাই হােক না কেন যুবলীগের সম্মেলন যে আওয়ামী লীগের কাউন্সিলের আগে হচ্ছে এনিয়ে কোন সন্দেহ নেই। নতুন নেতৃত্বে কারা আসবেন, সেটা আসলে বােঝা যাবে সম্মেলনের দিন তারিখ শুরু হবে তারপর। এবং  বাংলদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই যুবলীগের নতুন চেয়ারম্যান কাউন্সিলের মাধ্যমে নির্বচিত করবেন।

মন্তব্য

উপর