logo
Floating 2
Floating
শিরোনাম

স্বেচ্ছায় দরিদ্র কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা


স্বেচ্ছায় দরিদ্র কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা

শ্রমিকের চড়া মুজুরির কারণে ধান কাটতে পারছেনা দরিদ্র কৃষকেরা, তাই স্বেচ্ছা শ্রমের মাধ্যমে দরিদ্র কৃষকের ধান কর্তন করে দিচ্ছে শেরপুরের একদল যুবক। এতে অংশ নিচ্ছে স্থানীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষার্থীরাও।

শুক্রবার শেরপুর সদর উপজেলার মুন্সিচর গ্রামে হোসাইন মারুফ ক্রীড়া চক্রের উদ্যোগে এ স্বেচ্ছাশ্রমে ধানকাটা কর্মসূচি শুরুহয়। এদিন প্রায় ৫০ বিঘা জমির ধান কাটার পরিকল্পনা রয়েছে সংগঠনটির। সংগঠনের সদস্য বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আহবানে এতে যুক্ত হয়েছে রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষক ও সভাপতি ড. মামুন। তিনিও শেরপুরে এসে এ ধান কাটা কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেছেন।

তিনি জানান, শেরপুরে স্বেচ্ছাশ্রমে এই ধান কাটা কর্মসূচি একটি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত। সারাদেশে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ শিক্ষার্থীরাও যদি এভাবে গরীব কৃষকের ধান কেটে দেয় তাহলে কৃষরা উপকৃত হবে। কারণ কৃষক বাঁচলে দেশ বাঁচবে।

এলাকার যুবসমাজের এই স্বেচ্ছাশ্রমে ধান কেটে দিয়ে কৃষকের পাশে থাকায় খুশি স্থানীয়রাও। মাঠে অনেক কৃষকের ধান পাকলেও শ্রমিকের উচ্চ মজুরির কারণে ধান কাটতে পারছিলেন না তারা, তাই স্বেচ্ছাশ্রমে তাদের ধান কেটে দেওয়ায় তারা বেশ খুশি ।

 স্বেচ্ছাশ্রমে ধানকাটার মুল উদ্যোক্তা ও হোসাইন মারুফ ক্রীড়াচক্রের সভাপতি হোসাইন মারুফ জানান, তারা স্থানীয় প্রায় অর্ধ শত শিক্ষার্থী ও যুবককে সঙ্গে নিয়ে এলাকার দরিদ্র কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছে। প্রথম দিন তারা ৫০ বিঘা জমির ধান কাটেন এবং এর ধারাবাহিকতায় যতদিন জমিতে পাকা ধান রয়েছে ততদিন পর্যন্ত তারা পর্যায়ক্রমে সকল কৃষকের ধান কেটে দেবেন।

মন্তব্য

উপর