logo
Floating 2
Floating
শিরোনাম

মৌসুমীকে হারিয়ে ফের মিশা-জায়েদ জয়ী


মৌসুমীকে হারিয়ে ফের মিশা-জায়েদ জয়ী

মিশা সওদাগর ও চিত্রনায়ক জায়েদ খান পুনরায় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন।

শুক্রবার (২৫ অক্টোবর) দিনভর নির্বাচনের পর দিবাগত রাত পৌনে ২টার দিকে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দ্বিবার্ষিক নির্বাচনের ফল প্রকাশ হয়। নির্বাচনে প্রাপ্ত ভোটে স্বতন্ত্র প্রার্থী মৌসুমীকে পরাজিত করে আবারও সভাপতি পদে নির্বাচিত হয়েছেন মিশা সওদাগর এবং ইলিয়াস কোবরাকে পরাজিত করে সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন জায়েদ খান।

মিশা সওদাগার ২২৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী চিত্রনায়িকা মৌসুমী পেয়েছেন ১২৫ ভোট। সাধারণ সম্পাদক পদে জায়েদ খান ২৮৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইলিয়াস কোবরা পেয়েছেন ৬৮ ভোট। সহ সভাপতি পদে নির্বাচিত হয়েছেন মনোয়ার হোসেন ডিপজল ও চিত্রনায়ক রুবেল। তাদের প্রাপ্ত ভোট যথাক্রমে ৩১১ ও ২৯৩।

মিশা-জায়েদ দুজনে আগের মেয়াদেও সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এবারও তাদের প্যানেল থেকে সব প্রার্থীই জয়ী হয়েছেন।

শিল্পী সমিতির এই নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার বিষয়টি মিশা সওদাগর কালের কণ্ঠকে বলেন, 'আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচন কমিশনার বিষয়টি কিছুক্ষণের মধ্যে জানাবেন। তবে আমাদেরকে জানানো হয়েছে, আমরা পুরো প্যানেল নিয়েই জয়ী হয়েছি।'

এবার ২১টি পদের বিপরীতে ২৭ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। মোট ভোটার ৪৪৯ জন। এর মধ্যে ভোট দিয়েছেন ৩৮৬ জন। শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে বিকেল ৫টায় শেষ হয়।

নির্বাচিত হওয়ার পর মিশা বলেন, সবার দোয়া ও ভালোবাসায় আমরা জয়ী হতে পেরেছি। চলচ্চিত্রের সব শিল্পী, কলাকুশলীসহ এফডিসির সবার কাছে আমি কৃতজ্ঞ। শিল্পীদের সবাইকে নিয়ে চলচ্চিত্রের উন্নয়নে কাজ করারও প্রত্যয় ব্যক্ত করেন মিশা।

সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান বলেন, ‘চলচ্চিত্র শিল্পীরা যাতে সম্মানের সঙ্গে মাথা উঁচু করে বাঁচতে পারে, আমরা সেই ব্যবস্থা করব। শিল্পীরা কেউ হারেনি। আমরা আগামীতে যেন বিগত বছরের কাজের গতিটা ধরে রাখতে পারি সবার কাছে এই দোয়াই চাই।’

এবারের নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন তিন প্রার্থী। তারা হলেন- সাংগঠনিক সম্পাদক পদে সুব্রত, দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক পদে জ্যাকি আলমগীর ও কোষাধ্যক্ষ পদে ফরহাদ। ভোট গ্রহণের আগে নির্বাচন কমিশন যখন চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করে। সেখানে ওই তিন পদে তিনজনকে নির্বাচিত ঘোষণা করেন।

মন্তব্য

উপর