logo
Floating 2
Floating
শিরোনাম

নরসিংদীতে টেক্সটাইল মালিকের হাতে শারীরিক নির্যাতনের স্বীকার এক নারী শ্রমিক


নরসিংদীতে টেক্সটাইল মালিকের হাতে শারীরিক নির্যাতনের স্বীকার এক নারী শ্রমিক

নরসিংদীর সদর উপজেলার চৌয়ালা এলাকার মেসার্স জি.জি. টেক্সটাইলের পুরুষ শ্রমিক ৪০ জন ও নারী  শ্রমিক ৪ জন। দীর্ঘদিন যাবৎ সুনামের সহিত কাজ করে আসছে। উক্ত টেক্সটাইল মালিক সংখ্যা লঘু ‘মলাই বাবু’ দীর্ঘদিন যাবৎ তাহার টেক্সটাইলে কর্মরত শ্রমিক রায়পুরার আইয়ুব আলীর কন্যা শারমিন (২৮) কে বিভিন্ন সময়ে কু-প্রস্তাব দিলে শারমিন কু-প্রস্তাবে রাজি না হইলে তাহার কারখানা হইতে বাহির করে দিবে বলে হুমকি প্রদান করে।


পরবর্তীতে শারমিনকে কু-প্রস্তাবে রাজি হইলে বেতন বাড়াবে এবং বিভিন্ন লোভ লালসা দেখিয়ে কিছু কেনাকাটা করে দিয়ে শারমিনকে সঙ্গে নিয়ে সুনামুরী পার্ক, শিবপুরে ঘুড়তে নিয়ে যায়। পরে ‘মলাই বাবু’ শারমিনকে কু-প্রস্তাবের কথা বলিলে শারমিন রাজি না হওয়ায় তাহাকে জোর পূর্বক পার্শ্বে ঝোপঝারে নিয়ে যায় এবং তাহার ইচ্ছা বিরুদ্ধে শারীরিক নির্যাতন করে। শরীরের স্পর্শকাতর বিভিন্ন স্থানে হাত দেয় এবং ধর্ষণ করার চেষ্টা করে।


পরবর্তীতে উক্ত ঘটনার বিষয়ে কাউকে না জানানোর জন্য শারমিনকে সি.এন.বি রোড, নরসিংদীতে ১টি তোষক ক্রয় করে দেয়। যাহার মূল্য ১৩শ টাকা। পরবর্তীতে রিক্সাচালকে ৩০টাকা ভাড়া দিয়ে শারমিনকে বাসায় পাঠাইয়া দেয় বলে শারমিন জানায়।


মেসার্স জি.জি. টেক্সটাইলের মালিক ‘মলাই বাবু’ বিগত সময়ে এ ধরণের বহু কর্মকান্ড ঘটিয়েছে মর্মে তাহার মিলের মিস্ত্রী শাহ আলম জানায়।  


পার্শ্ববর্তী মিলের শ্রমিক মোঃ কালাম মিয়া (৩৮), জানায় বিগত সময়েও সুন্দরী অল্প বয়সের মেয়ের কাজে এনে রাতের এ ধরনের অনৈতিক কর্মকান্ড করে আসছে। এ সমস্ত ঘটনার বিষয় ধামাচাপা দিতে বিভিন্ন মহলকে টাকা পয়সা দিয়ে আসছে বলে জানা যায়। 


গত মঙ্গলবার সংবাদ কর্মীগন মেসার্স জি.জি. টেক্সটাইলে গেলে উক্ত বিষয়ে জিজ্ঞাসা করিলে ঘটনাটির সত্যতা নিশ্চিত করেছে মিলের শ্রমিকগন। 

উক্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে সংবাদ কর্মীদেরকে ম্যানেজ করার বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা করেন।

মন্তব্য

উপর