logo
Floating 2
Floating
শিরোনাম

মেলান্দহে কৃষি ব্যাংকে গ্রাহকের একাউন্ট থেকে কোটি টাকা আত্মসাৎ , গ্রেফতার ১


মেলান্দহে কৃষি ব্যাংকে গ্রাহকের একাউন্ট থেকে কোটি টাকা আত্মসাৎ , গ্রেফতার ১

জামালপুরের মেলান্দহে কৃষি ব্যাংক শাখায় গ্রাহকের বিভিন্ন একাউন্ট থেকে কোটি টাকা আত্মসাৎ হওয়ার ঘটনায় মাসুদুর রহমান (৩৫) নামে এক ব্যাংক কর্মকর্তা গ্রেফতার হয়েছেন ।

অভিযোগ সূত্রে  বিষয়টি জানাজানি হলে সোমবার ব্যাংকে ভিড় করেন গ্রহকরা। ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকরা লাখ লাখ টাকা খুইয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহক ও ব্যাংকের একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কৃষি  ব্যাংক মেলান্দহ শাখায় মাসুদুর রহমান এ বছরের মার্চ মাসের ৩ তারিখে শাখার দ্বিতীয় কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন। চাকরির সুবাদে স্থানীয় সাধারণ মানুষ ও ব্যবসায়ীদের আস্থাভাজনে পরিণত হন তিনি।  বিশ্বস্ততার সুযোগ নিয়ে চতুর ব্যাংক কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান অনেক গ্রাহকের সিসি,সঞ্চয়ী, চলতি সহ বিভিন্ন হিসাব থেকে কোটি টাকা আত্নসাৎ করেছেন।

মেলান্দহ কৃষি ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম অভিযোগ করে জানান, গ্রাহক শফিকুল ইসলাম, রবিজল,আব্দুর রহমান, আকবর হোসেন, রফিকুল ইসলাম,ইমরান শেখ, নূর ইসলাম, মোখলেছুর রহমান, আবু হাসনাত,আজিজুল হক ও উমর আলীর একাউন্ট থেকে প্রায় ৭৫ লক্ষ টাকা ব্যাংক কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান তার আত্মীয় ফসিউল আলম, সাদ্দাম হাওলাদার, সেলফী জুয়েল গার্মেন্টস ও আশিকুর রহমানের একাউন্টে ডাচ বাংলা ব্যাংক ও মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক শাখায় প্রেরণ করেন।

মেসার্স ইমরান ট্রেডার্স এর স্বত্তাধিকারী ব্যবসায়ী হাজী মো. মোজাম্মেল হক কায়দা জানান, আমি ২০ লক্ষ টাকা এই ব্যাংকে রেখেছি। আমার একাউন্ট নাম্বার হলো ৪৪৮। আমি খবর পেলাম এই ব্যাংকে অনেক গ্রাহকের টাকা একাউন্টে নেই। এসে দেখি আমার একাউন্টে থাকাও ১৬ লক্ষ টাকা উধাও । ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক জানালেন টাকা পাবো ।

সংবাদপত্র ব্যবসায়ী মোঃ শামীম জানান, আমরা মেলান্দহ বাজারের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। আমরা ব্যাংকের প্রতি বিশ্বাস রেখে ব্যবসা করি। হঠাৎ করে শুনি অনলাইনে আমার  টাকা অন্য একাউন্টে চলে গেছে। এখন আর আমাদের ব্যাংকের প্রতি আর আস্থা নেই।

অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আলহাজ্ব আব্দুস ছাত্তার জানান, মেলান্দহে বাজার করতে এসে শুনি কৃষি ব্যাংকে টাকা নিয়ে ঝামেলা। পরে আমি ব্যাংকে এসে দেখি আমার একাউন্টে থাকা ৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা  নেই। আমার সঞ্চয়ী হিসাবে মাত্র ৩৪০ টাকা আছে। বাকি টাকা কোথায় গেছে আমি নিজেও জানি না।

রুকনুজ্জামান বলেন , গতরাত ৮ টার দিকে আমাকে শাখা ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম ও কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান মোবাইলে ডেকে নিয়ে আসে। সাথে চেক আনতে বলে। আমার কাছ থেকে ১৮ লক্ষ টাকার চেক নেয়। আজকে টাকা দেওয়ার কথা ছিলো। এখন পর্যন্ত আমার টাকা ফেরত দেয়নি।  

শাখা ব্যবস্থাপক মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, আমি গতকাল একজন গ্রাহকের  অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমি একাউন্ট খোঁজ নিয়ে সত্যতার প্রমাণ পাই। আমার শাখার কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান তার আত্নিয়ের কয়েকটি শাখায় টাকা গুলো প্রেরণ করেন। তার সাথে কথা বললে তিনি সব স্বীকার করেন। তার সাথে অন্য কোন কর্মকর্তা জড়িত নেই। নিজের মুনাফার লোভে এমন কাজ করেছেন। আনুমানিক তার স্বীকারোক্তিতে ১২ /১৪ জনের নিকট থেকে ৭৫ লক্ষ টাকার অধিক টাকা অন্যত্র সরিয়ে নিয়েছেন। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা আমরা গ্রহণ করছি। ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। ভুক্তভোগী সবাইকে ব্যাংক ক্ষতিপূরণ দিয়ে দিবে।

ময়মনসিংহ বিভাগীয় জেনারেল ম্যানেজার ইনচার্জ মোঃ দিদারুল ইসলাম মজুমদার বলেন, আমি খবর পেয়ে এখানে এসেছি। এসে দেখি আসামীকে রুমে আটকে রেখেছে। তাকে আমি সহ কর্মকর্তাগণ জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। তিনি ৭৫ লক্ষ টাকা অন্যত্র সরিয়ে নিয়েছে। আমি প্রাথমিকভাবে রিপোর্ট পাঠাবো। বাকি সব তদন্তের মাধ্যমে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সবার টাকা পরিশোধ করা হবে। কারো টাকার কোন সমস্যা হবে না।

মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)  মোঃ রেজাউল ইসলাম খান সাংবাদিকদের বলেন, কৃষি ব্যাংক মেলান্দহ শাখায় টাকা আত্নসাৎ এর ঘটনায় শাখা ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম এর অভিযোগে ব্যাংক কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান কে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মন্তব্য

উপর