logo
Floating 2
Floating
শিরোনাম

সাহসিকতা ছাড়া সাংবাদিকতা হতে পারে নাঃ ইকবাল সোবহান চৌধুরী


সাহসিকতা ছাড়া সাংবাদিকতা হতে পারে নাঃ ইকবাল সোবহান চৌধুরী

প্রধানমন্ত্রীর সাবেক তথ্য উপদেষ্টা, বিশিষ্ট সাংবাদিকনেতা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেছেন, সাহসিকতা ছাড়া সাংবাদিকতা হতে পারে না। সাংবাদিকদের সাহসী হতে হবে। নীতি-নৈতিকতাও থাকতে হবে। নীতি-নৈতিকতাবিবর্জিত সাংবাদিকতা আসলে সাংবাদিকতা নয়।
ইকবাল সোবহান চৌধুরী ‘সাংবাদিকতার নীতিমালা ও নৈতিকতা’ বিষয়ক আলোচনা করতে গিয়ে এসব কথা বলেন।
মঙ্গলবার দুপুরে যশোর সার্কিট হাউজে আয়োজিত সাংবাদিক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় তিনি বিশেষ অতিথি ছিলেন।
‘সাংবাদিকতার নীতিমালা, অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় লক্ষণীয় বিষয়সমূহ ও তথ্য অধিকার আইন অবহিতকরণ’ শীর্ষক এই প্রশিক্ষণ কর্মশালা আয়োজন করে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল।
যশোর জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় এই কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মোহাম্মদ মমতাজ উদ্দিন আহমেদ।
আলোচনাকালে ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, রাজনীতিবিদরা কখনো কখনো সাহসী হন। আর সাংবাদিকরা প্রতিদিন সাহসিকতার পরিচয় দেন। রাজনীতিকরা ক্ষমতায় থাকলে সাংবাদিকদের বস্তুনিষ্ঠ, দায়িত্বশীল হতে বলেন। আর বিরোধী দলে গেলে সাহসী সাংবাদিকতা করতে বলেন।
ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, স্বাধীনতা-উত্তরকালে মিডিয়ার চরিত্র বদলেছে। পূর্ব পাকিস্তান আমলে সাংবাদিকরা স্বাধীনতা সংগ্রাম এগিয়ে নেওয়ার জন্য কাজ করতেন। এখন শাসকদের সঠিক পথে আনতে ওয়াচ ডগের ভূমিকা পালন করছেন।
আলোচনাকালে সাংবাদিকনেতা ইকবাল যশোরসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের নিহত সাহসী সাংবাদিকদের স্মরণ করেন। রানার সম্পাদক শহীদ গোলাম মাজেদের নাম ওয়াশিংটন প্রেসক্লাবে খোদাই করা আছে- তাও স্মরণ করিয়ে দেন তিনি।
তিনি বলেন, সাংবাদিকদের স্থায়ী বন্ধু হলো সমাজের বঞ্চিতরা। আর স্থায়ী শত্রু হলো ক্ষমতাশালীরা। ঝুঁকি, নিরাপত্তাহীনতা, সীমাবদ্ধতা থাকবে। তার মধ্যে থেকেই সাংবাদিকতা করতে হবে। সাংবাদিকরা শুধু বিবেকের কাছে দায়বদ্ধ থাকেন। এটিই তাদের নৈতিকতা।
কর্মশালায় আরো আলোচনা করেন প্রেস কাউন্সিলের সদস্য বিশিষ্ট সাংবাদিক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা, সদস্য শাহ আলম এবং সরকারের যুগ্ম সচিব আব্দুল মজিদ।
পরে কর্মশালায় অংশগ্রহণকারী যশোরের সাংবাদিকদের মাঝে সনদপত্র বিতরণ করা হয়।
সমাপনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন যশোরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রফিকুল হাসান। আরো বক্তব্য দেন প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন ও সাবেক সভাপতি একরাম-উদ-দ্দৌলা।

মন্তব্য

উপর