logo
Floating 2
Floating
শিরোনাম

কুলিয়ারচরে করোনা নিয়ন্ত্রণে ইউএনও'র নির্দেশনায় দোকান বন্ধে গুরুত্ব দিচ্ছেনা ব্যবসায়ীরা


কুলিয়ারচরে করোনা নিয়ন্ত্রণে ইউএনও'র নির্দেশনায় দোকান বন্ধে গুরুত্ব দিচ্ছেনা ব্যবসায়ীরা
করোনাভাইরাস থেকে মানুষকে সুরক্ষিত রাখতে কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলা নিবার্হী অফিসার রুবাইয়াৎ ফেরদৌসী'র কর্তৃক গণ-বিজ্ঞপ্তি জারী হওয়ার পর বুধবার (২৫ মার্চ) সকাল থেকে কুলিয়ারচর পৌর শহরে দোকানপাট বন্ধ রাখতে দেখা গেলেও উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারে ঘুরে দেখা যায় ইউএনও'র  নির্দেশনায় গুরুত্ব না দিয়ে প্রশাসনকে বৃদ্ধাআঙ্গুলী দেখিয়ে দোকানপাট খোলা রেখে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে সিংহভাগ  ব্যবসায়ীরা।


গত ২৪ মার্চ মঙ্গলবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুবাইয়াত ফেরদৌসী’র স্বাক্ষরিত এক গণ-বিজ্ঞপ্তিতে তিনি উল্লেখ করেন, ২৫ মার্চ বুধবার থেকে ঔষধ এবং মুদির দোকান ব্যতীত সকল দোকানপাট অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ রাখতে হইবে। তবে খাবারের হোটেলগুলো খোলা রাখতে চাইলেও হোটেলগুলোতে বসে খাবার খাওয়া যাবে না, প্রয়োজনে পার্সেলে খাবার নেওয়া যাবে। 
নির্ধারিত তারিখ ও সময়ে জমায়েত হওয়া বাজারে কাঁচা বাজার, মাছ ও মাংসের দোকান বেচা-কেনা শুরু হওয়া থেকে শুধু মাত্র ২ ঘন্টার জন্য খোলা রাখতে পারবে এবং বন্ধ করার পর ব্রিচিং পাউটার দিয়ে পরিস্কার করতে হইবে। আরো বলা হয়, উক্ত নির্দেশনাবলী অমান্যকারীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হইবে। 


কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের গণ-বিজ্ঞপ্তি জারি হওয়ার পরও অধিকাংশ ব্যবসায়ী এর কোনো গুরত্বই দিচ্ছেনা। করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকতে হলে জনসমাগম থেকে বিরত থাকতে হবে এমন প্রচার প্রচারণা করে গেলেও কে শুনে কার কথা এমন অভিযোগ অনেকেরই। এ অবস্থায়  বিষয়টি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছে উপজেলার সচেতনমহল।

মন্তব্য

উপর